গুণধর শ্বশুর ১

প্রথম ভাগ
বেয়াই-বেয়ানে কোলাকুলি

সরলা টেলিগ্রামটি পেয়ে অবাক এবং হতভম্ব। টেলিগ্রামটি পাঠিয়েছে তারই মেয়ে কমলা যার বিয়ে হয়েছে মাত্র ১ সপ্তাহ আগে। সে তার করে জানিয়েছে যে তার শ্বশুরের ভারি বিপদ, মা যেন এক্ষুনি তার শ্বশুর বাড়িতে যায় এবং শ্বশুরকে বিপদ থেকে উদ্ধার করে কারণ সে এবং তার জামাই দুজনই সিমলায় হনিমূনে এসেছে। টেলিগ্রামটি পড়া হলে সরলা পুরোপুরি কিংকর্তব্যবিমূঢ়। সে বুঝতে পারছে না সে এখন কি করবে।
মাত্র ১ সপ্তাহ আগে সরলা তার বেয়াইকে বিয়ের সময় দেখেছে পুরোপুরি সুস্থ এবং হাসিখুশি। এখন এমন কি বিপদ ঘটল? তার বেয়াই বড় পুলিশ অফিসার তাই অন্য কোনো বিপদের আশঙ্কা কম। সরলা মনেমনে স্থির করলো এখনই একবার লেন্ডলাইনে ফোন করে বেয়াইর সঙ্গে কথা বলা দরকার। সরলা সঙ্গেসঙ্গেই ফোন লাগালো তার বেয়াইকে, ফোন বেজেবেজে বন্ধ হয়ে গেল আবার ফোন করলো সেই বেজেবেজে বন্ধ হয়ে গেল, কেউ ফোন ধরলনা। সরলা তার বেয়াইয়ের মোবাইল নাম্বার জানে না তাই মোবাইলে কথা বলার রাস্তা বন্ধ। হঠাৎ সরলার মনে পড়ল তার মেয়ে-জামাইর মোবাইলে ফোন করলেই ব্যপারটা জানা যাবে I সরলা সঙ্গেসঙ্গেই ফোন লাগালো তার মেয়ে-জামাইকে কিন্ত দুটো ফোনই সুইচ অফ। এবার সরলার মাথায় অল্প অল্প ঘাম দেখা দিল, তার হাত পা যেন ক্রমশ ঠান্ডা হয়ে আসতে লাগলো, সে বুঝতে পারছে না সে এখন কি করবে। সরলা ধপাস করে চেয়ারের উপর বসে পড়ল, তার মাথাটা ঝিমঝিম করতে লাগলো। সরলা বেশ কিছুক্ষণ চুপচাপ বসে থাকলো। সরলার মনে নানারকম দুশ্চিন্তা দেখা দিল, তার মেয়ে তাকে ফোন না করে টেলিগ্রাম করলো কেন, সবার ফোন সুইচ অফ কেন, কমলার শ্বশুরের কি এমন বিপদ ঘটলো? আবার এটা ভেবে মনকে সান্তনা দেবার চেষ্টা করলো বেয়াই হয়তো অফিসে তাই ফোন ধরছে না, মেয়ে-জামাইর মোবাইলে হয়ত কোনো চার্জ নেই। কিন্ত কোন ভাবেই সরলা নিজেকে শান্ত করতে পারল না, দুশ্চিন্তা ক্রমশ বাড়তে থাকলো। সরলা উঠে জল খেল, অস্থির ভাবে ঘরে পায়চারি করতে লাগলো। বেশ কিছুখন পরে সরলা নিজেকে শান্ত করে ভাবতে বসলো তার এখন কি করনীয়, ভেবে স্থির করলো সে রাত্রি নটা নাগাদ আবার সবাইকে ফোন করবে তখন ফোনে সাড়া না পেলে সে কাল সকালে মেয়ের শ্বশুর-বাড়ির দিকে রওনা দেবে।

পাঠকদের অবগতির জন্য নিচে গল্পের চরিত্রগুলির পরিচয় দিলাম:

সরলা- বয়স ৩৮র কাছাকাছি, দুই মেয়ে বড়টি রমলা, ছোটটি কমলা, স্বামী কমলার জন্মানোর ১ বছরের মাথায় ক্যান্সার মারা যায়, স্বামী ব্যাঙ্কে যা টাকাপয়সা রেখে গেছেন তার সুদে সরলা স্ব্ছন্দে দুই মেয়েকে মানুষ করতে পারেন এবং বারাসাতে ৪ কাঠা জমির উপর ১ তলা নিজ্বস্ব বাড়ি।

রমলা- সরলার বড় মেয়ে, ৩ বছর হলো বিয়ে হয়েছে। স্বামী, শ্বাশুড়ি (নাম- কুমুদিনী)ও বিহারী চাকর (রামু) নিয়ে সংসার।

কমলা- সরলার ছোট মেয়ে, ৭ দিন আগে বিয়ে হয়েছে। বিপত্নীক শ্বশুর ও স্বামী নিয়ে সংসার।

মদন বাবু- মুখ্য চরিত্র, কমলার শ্বশুর, পুলিসে কাজ করেন, আর মাসখানেক পরে রিটায়ার করবেন।

রতিকান্ত- মদন বাবুর বন্ধু প্রতিবেশী, মা বাপ মরা ভাইঝিকে (নাম-সবিতা) নিয়ে থাকেন।

সবিতা-বাবা মা মারা যাবার পর অবিবাহিত কাকার কাছেই মানুষ, এখন কাকার সংসার দেখাশুনা করে, বয়স প্রায় ২৭র কাছাকাছি, বিয়ে না করার পন নিয়েছে (কারন ক্রমশ প্রকাশ্য)

সাবিত্রী- মদন বাবুর পিসতুতো ভাইয়ের বউ, দু তিনটে বাড়ির পরেই থাকে, মাতাল স্বামী নিয়ে সংসার।

প্রথম সিন

(মদন বাবু অফিসে যাবার জন্যে তৈরি হচ্ছেন, উদ্বিগ্ন মুখে বেয়ান সরলার প্রবেশ)
মদন- আরে বেয়ানযে, কি খবর? এত সকালে?
সরলা- আমি ঠিক আছি, আপনার খবর বলুন?
মদন- কেন? আমার আবার কি হল?
সরলা- মানে? আপনার কোনো বিপদ হয়নি?
মদন- কি বলছেন যা তা! কিসের বিপদ?
সরলা- আ…মানে আপনার বিপদ শুনেইত দৌরে এলাম!
মদন- কি…? কে বলল আপনাকে?
সরলা- এইত দেখুন না টেলিগ্রামটা। আমি কাল থেকে মেয়ে জামাইর মোবাইলে ট্রাই করছি, কিন্তু খালি সুইচ অফ বলছে। আপনার ল্যান্ডলাইনেও ট্রাই করেছি, শুধু বেজে যাচ্ছে।
(মদন বাবু টেলিগ্রামটা হাথে নিয়ে পড়লেন এবং নিজের কাছে রেখে দিলেন)
মদন- আমার বাড়ির ফোনটা কাল থেকে খারাপ, আপনি একটু শান্ত হয়ে বসুন, জল-টল খান, তারপর ধীরে সুস্থে আপনার সব কথা শুনব।
(মদন বাবু সরলাকে এক গ্লাস জল দিলেন এবং সরলাকে সোফাতে বসতে বললেন)